ইংরেজি লেখার দক্ষতা বাড়ানোর ১০টি টিপস


রাইটিং রিলেটেড যা কিছু ইনফরমেটিভ রয়েছে তা আমরা আপনাদেরকে জানিয়ে থাকি। তবে আপনাদের অনুরোধ আমরা সবসময় একটু আলাদাভাবে বিবেচনা করে থাকি। অনেকেই আমাদের কাছে বলেছেন যে আমি তো ইংরেজি লিখতে পারি না। আপনারা কোনোভাবে সাহায্য করুন যাতে আমরা আমাদের ইংরেজি লেখার দক্ষতা বাড়াতে পারি। 

আমরাও ভাবছিলাম এরকম কিছু নিয়ে যদি একটা গাইডলাইন দেয়া যায়। তাই আজ এসে পড়লাম এই বিষয় নিয়ে একটি বিষদ গাইডলাইন নিয়ে। তো আর সময় নষ্ট না করে চলুন আমাদের মূল কথায় প্রবেশ করা যাক:


আচ্ছা আপনারা অনেকেই বলেন বাংলায় পারি ভাই। কিন্তু ইংরেজি অনেক কঠিন লাগে। কিন্তু আপনি কি জানেন বাংলা অনেক সহজ ও সুমধুর ভাষা হলেও এটা কিন্তু অনেক কঠিন একটি ভাষা। না আমার উপর রাগ করবেন না। এটা মনগড়া কিছু বলছি না। বরং যারা বাংলা ভাষা পারে না তারা যখন লিখতে যায় তখন তারা এই মধুর সমস্যার সম্মুখীন হন। কিন্তু আমরা কেন সমস্যায় পড়ি না জানেন? কারণ বাংলা হচ্ছে আমাদের মাতৃভাষা। আর মাতৃভাষা হবার জন্য আমরা সহজেই এটা বুঝতে পারি না যে আমাদের মাতৃভাষা সহজ নাকি কঠিন। তবে আপনি যদি অন্য কোনো মাতৃভাষা শিখতে চান তখন কিন্তু ঠিক বুঝতে পারবেন এটা কঠিন নাকি। যাই হোক বেশি কথা না বাড়িয়ে আজকের মূল আলোচনায় ফিরে আসা যাক।


ইংরেজি হচ্ছে আন্তর্জাতিক ভাষা। অন্যান্য ভাষার চেয়ে এটি সহজ। আর এটি এখন সব জায়গায় ব্যবহার করা হয়। যারা ইংরেজি লিখতে চান কিন্তু চিন্তা রয়েছে পারবেন কিনা তাদের জন্য আজ নিয়ে এলাম ১০টি টিপস। এই টিপসগুলো ফলো করলে আপনার ইংরেজি দক্ষতা বাড়বে এবং আপনি খুব সহজেই সাবলীলভাবে ইংরেজি লিখতে পারবেন। তো জেনে নেয়া যাক সেই ১০টি টিপস এবং তার বিস্তারিত:


১. নিজেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ করুন:

আমি পারবো। প্রথমে নিজেই নিজেকে বিশ্বাস করানো যে আপনি পারবেন। হ্যা আমি পারবো, আমাকে দিয়ে হবেই হবে। যদি নিজেকে দিয়ে এই বিশ্বাস না আনাতে পারেন তবে কিন্তু কাজের মাঝপথে গিয়ে নিজেকে হারিয়ে ফেলবেন। তাই নিজের কাছে নিজেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ করুন যে, ইংরেজি ভাষা শিখতে গিয়ে যতকিছু প্রতিকূলতা আসুক না কেন আমি পিছপা হবো না। এই পয়েন্টটা বলার কারণ হলো আমরা বেশিরভাগই কোনো দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্যে যাবার আগে খুব উদ্যম নিয়ে শুরু করি তবে শুরু কিংবা মাঝ পথে গিয়ে পথ হারিয়ে ফেলি। তাই আগে নিজেকে নিজের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ করা জরুরি।


২. গ্রামার বই পাশে রাখুন


যদিও আমরা প্রায় বলে থাকি যে ইংরেজি শিখতে গ্রামার এত একটা দরকার পরে না আরো অনেক কিছু। তবে বাস্তবতা একটু ভিন্ন বটে। কারণ গ্রামারটিক্যাল মিসটেকের কারণে পুরো বাক্য এলোমেলো হয়ে যেতে পারে। তাই গ্রামারের দিকটা নজর দেয়া দরকার। 


৩. প্রতিদিন নতুন কিছু শব্দ শিখুন


ভোকাবুলারি আমরা সবাই কমবেশি করেছি তাই না? এখন ইংরেজি ভাষা শিখবেন আর টুকটাক ভোকাবুলারি শিখবেন না তা তো হয় না। অনেকের কাছেই এটা খুব কঠিন কাজ বলে মনে হচ্ছে তাই না? না আসলে এটা কঠিন না। আপনি প্রতিদিন একটা নতুন শব্দ শিখুন আর তার সাথে এর পাঁচটি সমার্থক শব্দ জানুন। তাহলে মোট ৬ শব্দ হয়ে যাচ্ছে। এবার ভাবুন মাসে ১৮০টা আর বছরে প্রায় ২০০০ এর অধিক শব্দ আপনার আয়ত্ত্বে চলে আসবে। এটাকে হেলা করবেন না। যদি সিরিয়াস হন তবে এটা অনেক কাজে দিবে।


৪. ইংরেজি লেখার পড়ুন


এটা আমি প্রচুর পছন্দ করি। আমার কাছে এটা অনেক এফেক্টিভ বলে মনে হয়। কন্টেন্ট রাইটিং যদি করতেই চান তবে একটা কথা নিশ্চয়ই পড়েছেন তা হলো লিখতে চাইলে পড়তে হবে। আর আপনি যদি ইংরেজির দক্ষতা বাড়াতে চান তবে ইংরেজি পড়ার কোনো বিকল্প নেই বলেই আমি মনে করি। কেননা আপনি যত পড়বেন তত জানতে পারবেন। কেন এভাবে লিখলো। কোথায় কি লিখছে তা আপনার আয়ত্ত্বে আসবে। তাই প্রচুর ইংরেজি পত্রিকা, ইংরেজি ব্লগ পড়ুন। পরিবর্তন নিজেই দেখতে পারবেন।


৫. অনলাইনে ইংরেজি শোনার চেষ্টা করুন


আমরা আমাদের জীবনের অন্যতম ব্যস্ত সময় পাড় করি মূলত অনলাইনে। আপনি এই অনলাইনকেও আপনার ইংরেজি শেখার হাতিয়ার বানিয়ে ফেলুন। আমরা অনলাইনে বিভিন্ন মুভি, ওয়েব সিরিজ আরো কত কি দেখি তাই না? আচ্ছা কেমন হয় যদি এগুলো আপনি ইংরেজি ভাষায় দেখার অভ্যাস গড়তে পারেন তবে আপনার অনেক লাভ হবে। কেননা আপনি যতটা পড়ে শিখতে পারবেন তার চেয়ে বেশি শুনে বেশি মনে রাখতে পারবেন এবং লিখতে পারবেন। এমনকি শুনলে আপনার মাথায় তা অটোমেটিক সেট হয়ে যাবে। 


৬. ইংরেজিতে কথা বলুন


অনেক শুনলেন অনেক পড়লেন এবার একটু ইংরেজি বলার চেষ্টা করুন তো। কি ভাবছেন কিভাবে বলবেন? আচ্ছা আপনি যখন একা থাকেন তখন একা একাই বলুন। কেননা অনেকেই বন্ধু বান্ধবদের সামনে ইংরেজি বলতে লজ্জা পান। তাই শুরুটা করুন নিজে থেকে তারপর গ্রুপ করে বন্ধুরা মিলে শুরু করুন। দেখবেন কিছুদিন পর নিজের উন্নতি।  


৭. বিনোদনে ইংরেজিকে রাখুন


আমরা তো সারাদিন কাজ করি না তাই না? দিনে একটু হলেও তো আমরা বিশ্রাম নেই তাই না? এছাড়া অবসর সময়ে ছবি কিংবা ওয়েব সিরিজ দেখি তাই না? তাহলে এখানেও ইংরেজিকে কাজে লাগিয়ে ফেলুন। মূল কথা যেখানে পাবেন ইংরেজিকে ছাড়বেন না। দেখবেন একসময় ইংরেজি আপনাকে ছাড়বে না। এই ছবি কিংবা ওয়েব সিরিজ যা আপনার বিনোদনের অংশ তা ইংরেজিতে দেখলে আপনি খুব দ্রুত এই ভাষা আয়ত্ত করতে পারবেন।


৮. ইংরেজি লিখুন


অনেক তো পড়া, শোনা, কথা বলা হলো এবার একটু লিখতে বসুন। আপনি যদি নিয়ত করেন আপনি একজন ইংলিশ কন্টেন্ট রাইটার হবেন আর লিখবেন না তা কি করে হয় বলেন তো? ইংরেজি যদি একটু হলেও বোঝেন তবে শুরু করুন লেখা। প্রথমে ১০০ শব্দ দিয়ে আপনার যাত্রা শুরু করুন। এরপর ধীরে ধীরে বাড়ান। এখন ২০০, ৫০০ থেকে শুরু করে ১০০০ শব্দ লেখার অভ্যাস গড়ে তুলুন। একটি কথা মনে করিয়ে দিই। যত লিখবেন তত লেখার প্রতি ভালোবাসা বাড়বে এবং আগ্রহ তৈরি হবে।


৯. স্মার্টফোনকে কাজে লাগান


আচ্ছা আপনার বেষ্টফ্রেন্ড কে? এখন নিশ্চয়ই বলবেন এটা কেমন প্রশ্ন। আচ্ছা আমি জানি আপনার বেষ্টফ্রেন্ড কে‌। আপনার আমার অন্যতম বেষ্টফ্রেন্ড হচ্ছে মোবাইল ফোন। আমরা মোবাইল ফোনকে এতটাই আপন করে নিয়েছি যে একটা দিন এই মোবাইল ফোন ছাড়া চলা কষ্টকর নয় বরং অসম্ভব। তাই এই মোবাইল ফোনকে কাজে লাগান আপনার ইংরেজি শেখার যাত্রায়। অনেক অ্যাপস ও অনেক কল অ্যাপস রয়েছে যা আপনার ইংরেজি শেখার যাত্রা আরো সুগম করে দিবে। 


১০. প্রচুর অনুশীলন করুন


উপরে যা যা বললাম তা প্রচুর অনুশীলন করুন। আপনি উপরিউক্ত বিষয়গুলো অনুশীলন ব্যতীত অর্জন করার স্বপ্ন থাকলে তা আজ বাদ দিন। কেননা পৃথিবীর কোনো কিছুই অনুশীলন ব্যতীত অর্জন করা যায় না। তাই আজ থেকেই অনুশীলন শুরু করুন দেখবেন খুব দ্রুত এই ইংরেজি নামক বাধা অতিক্রম করে ফেলতে পারবেন। 


আজ এ পর্যন্তই। আশা করি এই আর্টিকেল থেকে আপনারা উপকৃত হয়েছেন। আপনাদের সাপোর্ট পেলে নিয়মিত এরকম টিপস নিয়ে হাজির হবো ইনশাল্লাহ। শুধু দরকার আপনাদের সাপোর্ট। আপনারা পাশে থাকলেই আমরাও আপনাদের পাশে থাকবো। আবারো দেখা হবে অন্য কোনো টপিক নিয়ে। ততক্ষন পর্যন্ত ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন।

ধন্যবাদ।

আরো জানুনঃ ১৫টি জনপ্রিয় কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.