এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং ( পার্ট-৬)


তো চলেই এলাম এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং এর শেষ পর্ব নিয়ে। একে একে ৫টা পর্ব হয়েছে। আজ ৬ষ্ঠ ও শেষ পর্বের মাধ্যমে শেষ হয়ে যাচ্ছে এই এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং এর এই মেগা সিরিজটি। তবে খুব ভালো লেগেছে যে আপনারা এটার জন্য ব্যাপক সাড়া দিয়েছেন। চলুন আর। কথা না বাড়াই। এবার শুরু করা যাক এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং এর শেষ পর্বের ৫টি মেগা টিপস এর আলোচনা:


২৬. এ্যাড ক্রিয়েটিভ


এ্যাড ক্রিয়েটিভ। প্রথমেই এ্যড ক্রিয়েটিভ নিয়ে আলোচনা করা যাক। আমরা অনেকেই ফেসবুকে এ্যাড রান করে থাকি।‌ কিন্তু এ্যাড রান করার জন্য কিছু নিয়ম কানুন মেনে চলতে হয় কিন্তু আমরা বেশিরভাগ সময় সেই নিয়মগুলো মেনে চলি না বা ভুলেই যাই। তবে এই বিষয়গুলো আমাদের মাথায় রেখে তারপর এ্যাড রান করাই উত্তম। কেননা ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন কিন্তু এর উপযুক্ত ব্যবহার করছেন না তা তো হতে পারে না। তাই আপনাকে এ্যাড ক্রিয়েটিভ এন্ড ট্রিকস সম্বন্ধে জানা খুবই প্রয়োজন। তাই আমরা এখন এই এ্যাড ক্রিয়েটিভ এন্ড ট্রিকস নিয়ে আলোচনা করবো। 


এ্যাড ক্রিয়েটিভটা মূলত হচ্ছে ফেসবুকে একটা এ্যাড রান করার আগে দেখে নেয়া যে উক্ত এ্যাডটি ঠিক আছে কিনা। বেশিরভাগ সময় এ্যাড রান করার পর দেখা যায় ফেসবুক সেটা গ্রহণ করে না এমনকি করলেও পরবর্তীতে তা রিজেক্ট করে দেওয়ার রেকর্ড রয়েছে। সমস্যাটায় যখন আপনি লো কোয়ালিটির এবং বাজে ইমেইজ ব্যবহার করবেন তখন। এছাড়াও অনেক সময় নিজের অজান্তে আমরা ক্রিপি ছবি ব্যবহার করি যা ভায়োলেশন তৈরি করে এবং ফেসবুকের রুলস ব্রেক করে থাকে। তাই ফেসবুক ইমেইজ ওভারলে একটা অপশন‌ রয়েছে সেখানে গিয়ে আপনি ইমেইজ চেক করে নিবেন যদি ফেসবুক ওকে বলে তবে তবেই আপনি সেটা দিয়ে এ্যাড রান করবেন। আর কন্টেন্টটাও গুরুত্বপূর্ণ আগের এপিসোডে এটা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। বুঝতেই পারছেন এ্যাড ক্রিয়েটিভ কতটা গুরুত্বপূর্ণ।


২৭. মাস্টারকার্ড


আপনি যদি আপনার ফেসবুক পেইজে এ্যাড রান করতে চান তবে আপনার একটি জিনিস লাগবে তা হচ্ছে মাস্টারকার্ড। আমাদের দেশে অনেকেই রয়েছেন যারা মাস্টারকার্ড ব্যতিত এ্যাড রান করার চিন্তা করেন। এমনকি বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করেন। আপনিও যে করতে পারবেন তা কিন্তু নয়। তবে এদিকে একটু সতর্ক থাকাই কি ভালো না? কেননা একটু সেইফে থেকে খেলতে পারলে তা আপনার জন্য উপকারী। আমি বলবো একটা মাস্টারকার্ড আপনি করে রাখুন।


মূলত মাস্টারকার্ড এর জন্য তেমন কিছুই লাগে না। আপনি চাইলে ব্যাংকে গিয়ে আপনার ভোটার আইডি দিয়ে ব্যাংকে বললে তারা মাস্টারকার্ড করে দিবে। তবে সেটা দিয়ে আপনি ডলার ইন্ডোসমেন্ট করতে পারবেন না। কারণ আপনার ডলার লাগবেই। কারণ ফেসবুকে এ্যাড রান করতে হয় ডলার দিয়ে পেমেন্ট করে। আর আপনার মাস্টারকার্ড দিয়ে ডলার এ্যাড করতে চাইলে পাসপোর্ট সবার আগে লাগবে। তাই যদি পাসপোর্ট না থেকে থাকে তবে দ্রুত একটি পাসপোর্ট করে ফেলুন। তারপর ব্যাংকে দেখালে তারা ডলার এ্যাড করার অনুমতি দিবে। এভাবে আপনি সহজেই একটি ডুয়াল কারেন্সি মাস্টারকার্ড সহজেই করে ফেলতে পারবেন। অনেকেই বলেন কোন ব্যাং থেকে করবো একটু সাজেশন দিন। দেখুন কমবেশি সব ব্যাংকেই তো করে। তবে এর জন্য জনপ্রিয় হচ্ছে ইবিএল এর একুয়া মাস্টারকার্ড। এছাড়া বর্তমানে মিডল্যান্ড ব্যাংক অনেক বেশি‌ সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে। তাই সময় থাকতে মাস্টারকার্ড করে ফেলুন এটা আপনার উপকারে আসবে।


২৮. বেসিক ওয়ার্ডপ্রেস ও উ-কমার্স ইন্টিগ্রেশন


মনে আছে পার্ট-১ এর কথা? সেখানে একটা পয়েন্ট ছিলো যে এফ কমার্স এ ওয়েবসাইট বাধ্যতামূলক কিনা। সেখানে স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছিলাম যে, এফ কমার্স যেহেতু ফেসবুকের মাধ্যমেই করা হয় তাই এতে ওয়েবসাইট তেমন একটা বাধ্যতামূলক নয়। আপনার একটি ফেসবুক পেইজ ও একটি ফেসবুক গ্রুপ থাকলেই যথেষ্ট। তবে একটা ওয়েবসাইট থাকাটা স্ট্যান্ডার্ড। এতে প্রমাণিত হয় যে আপনি একজন পুরোদস্তুর প্রফেশনাল। তো এ পর্যায়ে একটু কিভাবে ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় তা নিয়ে একটু আলোচনা ও পর্যালোচনা করা যাক। মূলত এফ কমার্স যখন করছেন তখন আপনার একজন প্রফেশনাল লেভেলের ওয়েব ডিজাইনার হবার কোনোই প্রয়োজন নেই। বরং আপনি বেসিক জানলৈই হবে। কারণ এফ কমার্স যখন করছেন তখন আপনার ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে একটা সম্মক ধারণা থাকাই যথেষ্ট। 


এখন বলতে পারেন তাহলে ওয়েবসাইট নিয়ে কতটুকু ধারণা থাকা উচিত? আসলে ওয়েবসাইট তৈরি নিয়ে একটু বেসিক ধারণা থাকলেই মোর দ্যান এনাফ। আর ওয়েবসাইট তৈরির জন্য জাস্ট টুকটাক ওয়ার্ডপ্রেস জানলেই হবে‌। আর একটা জিনিস জানতে হবে তা হলো উ-কমার্স। উ-কমার্স মূলত প্রোডাক্ট আপলোড এবং ইন্টিগ্রেশন এর কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে। আর আপনি যেহূতু বিজনেস করছেন তাই উ-কমার্স জানলে আপনার জন্য অনেক ভালো হবে। তাই একটু বেসিক ওয়ার্ডপ্রেস ও উ-কমার্স ইন্টিগ্রেশন এর কাজ জালে আপনি সহজেই আপনার জন্য একটা মানসম্মত ওয়েবসাইট খুব কম সময়ে বানিয়ে ফেলতে পারবেন।


২৯ মোবাইল দিয়ে এফ কমার্স


অনেকেই এই আর্টিকেলগুলো প্রকাশ করার পর অনেকেই বলেছেন যে,ভাই আমার তো পিসি নেই আমি কি এফ কমার্স করতে পারবো? হ্যা ভাই কেন পারবেন না? অবশ্যই পারবেন না। ইনফেক্ট এই এফ কমার্স আপনি পিসি এবং মোবাইল উভয় দিয়ে খুব সহজেই করতে পারবেন। এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই যে আপনার পিসি না থাকলে আপনার এফ কমার্স যাত্রা আটকে থাকবে। বরং অনেকেই শুধু মোবাইল দিয়ে আরামসে এই এফ কমার্স ব্যবসা করে যাচ্ছে বছরের পর বছর ধরে। 


প্রথমেই মোবাইলের পরলে স্টোরে যান এবং ফেসবুক বিজনেস স্যুট এপসটা নামান। সেটা দিয়ে আপনি সহজেই আপনার পেইজ কন্ট্রোল করতে পারবেন। আচ্ছা আপনি মোবাইল দিয়ে কি করতে পারবেন না বলুন তো? আপনার পেইজে পোস্ট, কমেন্ট, শেয়ার এবং এ্যাড রান থেকে সব আপনি মোবাইল দিয়ে ইজিলি করতে পারবেন। এছাড়া আপনার প্রোডাক্ট আপলোড করতে পারবেন মোবাইল দিয়ে। আশা করি আপনার পিসি না থাকলেও আপনার এফ কমার্স জার্নি কখনোই থেমে থাকবে না। শুধু দরকার আপনার স্বদিচ্ছা।

৩০.কেস স্টাডি এবং এফ-কমার্স ক্যারিয়ার


এখন ইতি টানার পালা। এটাই হচ্ছে আমাদের এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং এর এই মেগা সিরিজটির শেষ পার্টের শেষ টিপস। এখানে আমরা এর ক্যারিয়ার এবং একটা ছোট্ট কেস স্টাডি শেয়ার করবো। তো চলুন প্রথমে কেস স্টাডি শেয়ার করা যাক।
একটা এজেন্সিতে থাকাকালীন এক ক্লায়েন্টের এ্যাড রান করেছিলাম। তার বাজেট ছিলো মাত্র ৫ ডলার। বাড়াতে বলার পরও বাড়ায়নি। পরে বললাম আমি ২৫ ডলার এ্যাড রান করতে চাই। আমি এর ডাবল টাকা আনার চেষ্টা করবো। আমি সেল বলি নাই। আর যদি ডাবল আনতে পারি তবে আপনি আমাকে এক্সট্রা টাকা দিয়েন নাহলে দিয়েন না।‌ সে রাজি হলো। ১০ দিন পর বললো ভাই আমার আপনার দেয়া টার্গেটের চেয়ে আরো দ্বিগুন টাকা উঠেছে। এরপর সে আমাদের রেগুলার কাস্টমার হয়ে যায়।


এখন এই ফেসবুক মার্কেটিং শিখে কি করতে পারবেন তা একটু নিচে দিয়ে দিই:

১. এজেন্সি বিজনেস চালু করতে পারবেন

২. বিভিন্ন কোম্পানিতে জব করতে পারবেন

৩. ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন


তো যাই হোক এর মধ্যে দিয়ে আমরা ইতি টানলাম এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং এর এই মেগা সিরিজটি। মোট ৬টা পর্বে ৫টি করে টিপস দিয়ে মোট ৩০টি টিপস দিয়ে শেষ করলাম। ইনশাআল্লাহ পরবর্তীতেও এরকম টিপস নিয়ে হাজির হবো আপনাদের সামনে।

1 thought on “এফ কমার্স টু ফেসবুক মার্কেটিং ( পার্ট-৬)”

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.