মোহামেডানে যোগ দিচ্ছে রবিউল


ঢাকার ঐতিহ্যবাহী এক ক্লাব হচ্ছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। তবে কালের বিবর্তনে এই ক্লাব এখন অনেকটাই জৌলুস কমে গিয়েছে। আগের মতো সেই ধার কিংবা জৌলুস কোনোটি নেই মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের। তবে জনপ্রিয়তায় একটুও ভাটা পড়েনি মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। আশি নব্বই এর দশকে যেমন জনপ্রিয়তা ছিলো এখনো তেমনি জনপ্রিয়তা বিরাজ করছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের। কেননা দর্শক ভালোবাসা এবং জনপ্রিয়তা কোনোটিতেই প্রভাব ফেলতে পারেনি। আর তাই তো খারাপ ফলাফল কিংবা ভালো ফলাফল যাই হোক না কেন মাঠে মোহামেডান সমর্থকরা ঠিক চলে যান সমর্থন দিতে। তবে ক্লাবটা আর যাই হোক উঠে দাঁড়ানোর অনেক চেষ্টা করেই চলেছে। তবে কিছু বাধার জন্য উঠে দাঁড়াতে কষ্ট হচ্ছে।


অপরদিকে বসুন্ধরা কিংস হচ্ছে বর্তমান বাংলাদেশের ঘরোয়া ফুটবলের হট কেক এক দল। তারা হয়ে উঠেছে অপ্রতিরোধ্য। তবে বসুন্ধরা কিংসের সাথে সুসম্পর্ক রয়েছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের। আর তাই বসুন্ধরা কিংসের এক খেলোয়াড় যোগ দিতে যাচ্ছেন ঐতিহ্যবাহী ঢাকা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে।


বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল তাদের সকল পরিকল্পনা সাজাচ্ছে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বকে ঘিরে। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের আগে একটি প্রাক বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব খেলতে হয় দলগুলোকে। আর বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল তার ব্যতিক্রম নয়। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল উক্ত প্রাক বাছাইপর্ব পাড় করেই বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে প্রবেশ করেছে। 
প্রাক বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব পাড় হতে বাংলাদেশ ফুটবল দলকে সবচেয়ে বেশি যে সহায়তা করেছেন সে হচ্ছেন বসুন্ধরা কিংসের রবিউল হাসান। রবিউল হাসানের একমাত্র গোলের জন্য বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। তবে আফসোসের বিষয় হচ্ছে সেই রবিউল এখন নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন। প্রাক বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের সেই গোলের পর আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন রবিউল হাসান। আর স্বাভাবিকভাবেই সেই আলোড়নের জন্য তার উপর নজর পড়েছিলো বাংলাদেশ ঘরোয়া ফুটবলের বর্তমানের শক্তিশালী দল বসুন্ধরা কিংসের। তবে আফসোসের শুরুটা এখান থেকেই। কেননা কিংসের জার্সি তার গায়ে উঠার পর থেকে সে নিজেকে আর আগের মতো মেলে ধরতে পারেননি। এমনকি বর্তমান চলমান প্রিমিয়ার লিগে বসুন্ধরা কিংসের হয়ে শুধু সাইড বেঞ্চ গরম করেছেন কোনো ম্যাচেই বসুন্ধরা তাকে খেলায়নি। আর যার জন্য বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের হেড কোচ জেমি বের নজরেও পড়েনি রবিউল এবং বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের ক্যাম্পেও ডাক পায়নি। 


তবে ফুটবল পাড়ায় শোনা যাচ্ছে যে, রবিউল হাসান তার বর্তমান ঠিকানা বসুন্ধরা কিংস বদলে চলে যাচ্ছেন থাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে। তবে এটাও শোনা গিয়েছে তার বর্তমান ক্লাব বসুন্ধরা কিংস তাকে রাখতে চাচ্ছে না।  


রবিউল হাসানের বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে বসুন্ধরা কিংসের প্রেসিডেন্ট জনাব ইমরুল হাসান বলেছেন, ” রবিউল হাসানকে আমরা ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্তে পৌঁছিয়েছি। এটা চূড়ান্ত যে আমরা তাকে ছেড়ে দিচ্ছি। এখন রবিউল কোন ক্লাবে যাবে সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। তবে আমরা নিশ্চিত করেই যে আমরা তাকে ছেড়ে দিচ্ছি।”


তবে এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চায় না মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। রবিউলকে তারা দলে নিতে প্রস্তুত। তাকে নিতে ইতিমধ্যেই আলোচনা শুরু করে দিয়েছে বসুন্ধরা কিংস ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের কর্মকর্তারা। 


রবিউলকে মোহামেডানে নেবার ব্যাপারে ইমরুল হাসান বলেছেন, ” আমরা এখনো নিশ্চিত না সে মোহামেডানে যাচ্ছে কিনা। তবে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের কর্মকর্তারা আমাদের সাথে ইতিমধ্যেই যোগাযোগ করেছেন। আমাদের সাথে কথা চলছে। এখন খেলোয়াড় ও কর্মকর্তারা এক হলে হয়তো রবিউল মোহামেডানে যাবে।”


রবিউলকে নেয়ার ব্যাপারে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ফুটবলের দলনেতা ও ডিরেক্টর জনাব আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্স বলেছেন, ” রবিউলকে দলে পাবার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। সে একজন ভালো ফরোয়ার্ড। রবিউল ৩-৪ দিন সময় চেয়েছেন সিদ্ধান্তে পৌঁছতে। আর বসুন্ধরা কিংসের কাছ থেকে আমরা লোনে রবিউলকে দলে নিচ্ছি। তবে আমরা আশাবাদী এবং এই সপ্তাহেই হয়তো রবিউলকে পেতে পারি”

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.