সোসিয়েদাদকে গোল বন্যায় ভাসালো বার্সেলোনা


যত দিন গড়াচ্ছে ততই ক্রমে জমে উঠছে স্প্যানিশ লা লীগা। যখন চলতি মৌসুমের লা লীগা শুরু হয়েছিলো তখন একচেটিয়া জয় পাওয়া শুরু করেছিলো অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। তখন সবাই এক বাক্যে বলা শুরু করেছিলো যে লীগ চ্যাম্পিয়ন অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ছাড়া আর কেউ জিততে পারবে না। তবে সময় যত গড়াচ্ছে ততই জনপ্রিয় হয়ে উঠতে শুরু করেছে স্প্যানিশ লা লীগা। কারণ এখন তিণটি দল লা লীগার শিরোপা জেতার রেসে এগিয়ে রয়েছে। সেই দলগুলো হলো যথাক্রমে: অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ,বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। হ্যা ঠিক শুনছেন যে বার্সেলোনা কিনা একসময় শিরোপা জেতার রেসে তো দূরে থাক বরং রেলিগশন থেকে একটু দূরে ছিলো। এখন সেই বার্সেলোনাই এখন শিরোপার অনেক কাছাকাছি রয়েছে। এমনকি বার্সেলোনা দিন যত গড়াচ্ছে ততই প্রমাণ করে দিচ্ছে কেন তারা শিরোপা জেতার জন্য ফেভারিট। গতকাল তো রিয়েল সোসিয়েদাদের মাঠে রিয়াল সোসিয়েদাদকে এক প্রকার কাঁপিয়ে দিয়ে এসেছে বার্সেলোনা। তাদের মাঠে তাদেরকেই ৬-১ গোলে বিধ্বস্ত করেছে লিওনেল মেসির এফসি বার্সেলোনা।


গতকাল ম্যাচের শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হয় এফসি বার্সেলোনা। যদিও তাদের প্রথম গোল পেতে সময় লাগে ৩০ মিনিট। বার্সেলোনার হয়ে প্রথম গোল করেন আতোয়ান গ্রিজম্যান। এরপর পরপর দুটি গোল করেন আমেরিকান সার্জিনিও ডেস্ট। এরপর গোলের খাতা খুলেন বার্সেলোনার প্রাণভোমরা বার্সেলোনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি। এরপর একটি গোল দেন ফরাসি স্ট্রাইকার ওসমান ডেম্বেলে। তবে সেটি অফসাইড হবার জন্য বাতিল ঘোষণা করা হয়। তবে এরপর ঠিক বলকে জালে জড়াতে সক্ষম হন ফরাসি স্ট্রাইকার ওসমান ডেম্বেলে। এরপর সর্বশেষ গোল করেন লিওনেল মেসি। লিওনেল মেসির উক্ত গোলের মাধ্যমে জোড়া গোল করেন। এবং ম্যাচটিতে একটি এসিস্ট ও করেছিলেন লিওনেল মেসি। আর এই এসিস্টের মাধ্যমে তিনি চলতি মৌসুমের লা লীগার সর্বোচ্চ গোলদাতা ও সর্বোচ্চ এসিস্টের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন। এমনকি ম্যাচসেরাও হয়েছেন লিওনেল মেসি।


বর্তমানে লা লীগার টেবিলের টসে রয়েছে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ, দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এফসি বার্সেলোনা ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের পয়েন্ট হচ্ছে ৬৬, এফসি বার্সেলোনার পয়েন্ট ৬২ ও রিয়াল মাদ্রিদের পয়েন্ট ৬০। তাই বলাই বাহুল্য যে শিরোপার লড়াইয়ে এই তিনটি দল একে অপরকে টেক্কা দিচ্ছে।  

Leave a Comment

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.